মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০৬:০৬ অপরাহ্ন

বন্যার্তদের পর্যাপ্ত ত্রাণ, চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের দাবী

রির্পোটারের নাম / ৩১ বার
আপডেট সময় : রবিবার, ২৬ জুন, ২০২২

ডেক্স নিউজ : বন্যায় যখন মানুষ সহায় সম্বল হারিয়ে না খেয়ে মারা যাচ্ছে তখন সরকার তাদের পাশে না দাঁড়িয়ে অতি ব্যয়ে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজন করছে। এটা জনগণের সাথে নির্মম তামাশা ছাড়া কিছুই নয়। নেতৃবৃন্দ অপ্রয়োজনীয় উৎসব বন্ধ করে বন্যা কবলিত মানুষের খাদ্য চিকিৎসা পুনর্বাসনের জন্য এই টাকা ব্যয় করার দাবি জানান।

তারা বলেন, সরকারের অপ্রতুল, নামমাত্র ত্রাণ তৎপরতা আর অসত্য কথন মানুষকে আরও বিপদের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

গত ২৪ জুন বিকাল সাড়ে ৪টায় বাম গণতান্ত্রিক জোটের সারাদেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকার পল্টন মোড়ে সমাবেশ ও মিছিল হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জোটের সমন্বয়ক ও ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সাত্তার। বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) সভাপতি শাহ আলম, বাসদের সাধারণ সম্পাদক বজলুর রশিদ ফিরোজ, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু, বাসদের (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় নির্বাহী ফোরামের সমন্বয়ক মাসুদ রানা, বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টির (মার্কসবাদী) বিধান দাস ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের নির্বাহী সভাপতি আব্দুল আলী। সমাবেশ পরিচালনা করেন, ইউসিএলবি-এর নজরুল ইসলাম।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বন্যা কবলিত এলাকাকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা করে সর্বাত্মক ত্রাণ তৎপরতা, চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। একই সাথে বন্যা দুর্গত এলাকায় ব্যাংক ঋণ, এনজিও ঋণের সুদ মওকুফ ও কিস্তি আদায় আগামী অন্তত ছয় মাস বন্ধ রাখার জোর দাবি জানান। নেতৃবৃন্দ কৃষি পুনর্বাসন ও শিক্ষার্থীদের পুনর্বাসনে নগদ অর্থ বরাদ্দ করা এবং দুর্নীতি-দলীয়করণ মুক্তভাবে সকল সহায়তা প্রদানেরও দাবি জানান।

এর আগে গত ২১ জুন সিলেট, সুনামগঞ্জসহ সারা দেশের বন্যা পরিস্থিতি, বানভাসি মানুষের দুর্গতি ও সরকারের ভূমিকা নিয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের বক্তব্য দেশবাসীর সামনে তুলে ধরতে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) কেন্দ্রীয় কার্যালয় মুক্তি ভবনের মৈত্রী মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে আসেন বাম জোটের নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাম গণতান্ত্রিক জোটের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক ও বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আবদুস সাত্তার। বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন বাসদ সাধারণ সম্পাদক বজলুর রশীদ ফিরোজ, সিপিবির সাধারণ সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ সম্পাদক মোশরেফা মিশু। উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্কার্স পার্টির (মার্কসাবদী) সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবীর জাহিদ, বাসদ (মার্কসবাদী) নির্বাহী ফোরামের সমন্বয়ক মাসুদ রানা, বাংলাদেশর সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের সভাপতি আব্দুল আলী। উপস্থিত ছিলেন বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী সাধারণ সম্পাদক রাজেকুজ্জামান রতন, সিপিবির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য অনিরুদ্ধ দাশ অঞ্জন, ডা. সাজেদুল হক রুবেল, আনোয়ার হোসেন রেজা, বাসদ (মার্কসবাদী) কেন্দ্রীয় নেতা মানস নন্দী, বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য শামীম ইমাম, নজরুল ইসলাম, ওয়ার্কার্স পার্টির (মার্কসবাদী) বিধান দাস।

সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, অতিবৃষ্টি ও ভারত থেকে আসা পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট বন্যায় দেশের প্রায় ১৫ জেলায় ৭৩ উপজেলা প্লাবিত হয়েছে। সুনামগঞ্জ সারা দেশ থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন, সিলেটও প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। লক্ষ লক্ষ মানুষ পানিবন্দি রয়েছে। ঘর-বাড়ি, ফসল, ধান, চাল, গরু, ছাগল, হাঁস-মুরগির ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়েছে। হাসপাতাল, বিমানবন্দর, রেল স্টেশন, বাস টার্মিনাল, ব্যাংক ও অধিকাংশ দোকানপাট জলমগ্ন থাকায় যোগাযোগ, চিকিৎসা সেবাসহ সকল সেবা কার্যক্রম বিঘিœত হচ্ছে। সিলেট শহর ছাড়া দুই জেলায় কোথাও বিদ্যুৎ নাই, মোবাইল নেটওয়ার্ক বিচ্ছিন্ন, ইন্টারনেট সেবাও বন্ধ। সুনামগঞ্জ পুরো এবং সিলেট শহরের অধিকাংশ সড়কেই হাঁটুপানি থেকে কোমর পানিতে নিমজ্জিত। আশ্রয় কেন্দ্র অপ্রতুল, খাদ্য, শিশু খাদ্য ও খাবার পানির তীব্র সংকট, সৌচাগার অপর্যাপ্ত। মানুষ ও গবাদিপশুর একসাথে বসবাস এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতি। আজ পানি ধীর গতিতে নামার কথা শুনা গেলেও আশ্রয় কেন্দ্র থেকে এখনও মানুষের ঘরে ফেরা সম্ভব হচ্ছে না। খাবারের জন্য কেন্দ্রগুলোতে মানুষের উৎকণ্ঠা নিয়ে প্রতীক্ষার চিত্র গণমাধ্যমে প্রকাশ পাচ্ছে। কিন্তু সরকার প্রশাসন বলছে পর্যাপ্ত ত্রাণ আছে। দুই জেলার ৩০ লাখ মানুষের জন্য ৬০ লাখ টাকা অর্থাৎ ২ টাকা সরকারি বরাদ্দকে বানভাসী মানুষের সাথে প্রহসন বলে নেতৃবৃন্দ উল্লেখ করেন।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, দেশের মানুষ প্রত্যক্ষ করলো মানুষকে রক্ষায় সরকার, প্রশাসন ও আবহাওয়া দপ্তরের আগাম সতর্কবার্তা প্রেরণ, নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া, দুর্গত মানুষের জন্য খাদ্য, শিশু খাদ্য, পশু খাদ্য, খাবার পানি ইত্যাদি ব্যবস্থা গ্রহণের ক্ষেত্রে চরম উদাসীন ও ব্যর্থ। মাত্র ২ সপ্তাহ আগেই যেখানে সুনামগঞ্জ ও সিলেটে ১ম বার বন্যা হয়ে গেল তারপরও সরকার, প্রশাসন ও আবহাওয়া দপ্তরের এহেন দায়িত্বহীনতা ক্ষমার অযোগ্য বলে নেতৃবৃন্দ মনে করেন।

প্রকৃতি ও পরিবেশ ধ্বংস করে রাষ্ট্র-সরকারের অপরিকল্পিত উন্নয়ন, বাঁধ-সড়ক নির্মাণ, পাহাড়-টিলা-বন ধ্বংস করা, নদী-খাল খনন না করা, জলাশয় ভরাট হয়ে যাওয়া এবং নদী-খাল-জলাশয় দখল ও দূষণের কারণেই অতিবৃষ্টি ও বন্যা মহাদুর্যোগ হিসেবে দেখা দিচ্ছে। অন্যদিকে ভারত সরকার মেঘালয়ের চেরাপুঞ্জিতে প্রাকৃতিক বন ধ্বংস করে কৃত্রিম বনায়ন এবং বাংলাদেশের উজানে অসংখ্য বাঁধ-ড্যাম নির্মাণ করে পানির স্বাভাবিক প্রবাহে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছে। ফলে বর্ষায় পানি ছেড়ে দিয়ে বন্যার কবলে ফেলা এবং শুষ্ক মৌসুমে পানি আটকে রেখে মরুভূমি বানাচ্ছে যা আন্তর্জাতিক নিয়ম ও আইন বিরোধী। পানির স্বাভাবিক প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হওয়ায় ¯্রােত কমে গিয়ে বালু জমে নদীর তলদেশ উঁচু হয়ে গেছে, হাওর-বাওর ভরাট হওয়ায় পানির ধারণ ক্ষমতা কমে গেছে। পাহাড়, টিলা কেটে ফেলায় পানি শোষণ করে রাখার ক্ষমতা কমেছে। পরিকল্পিত ও বৈজ্ঞানিক উপায়ে নদী খনন না করায় খনন করে বালু, মাটি দূরে না ফেলে পাড়েই ফেলায় খননকৃত নদী আবার ভরাট হচ্ছে। এসবই হচ্ছে প্রধানত আমাদের সরকারের দুর্নীতি, ভুলনীতি ও লুটপাটের অর্থনৈতিক দর্শনের কারণে।

নেতৃবৃন্দ বলেন, যে কোন দুর্যোগেই একদল মুনাফালোভী ব্যবসায়ী জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে ফায়দা লুটে নেয়। সব থেকে ভয়ংকর হলো প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দুর্যোগে যারা কারসাজি করে দাম বাড়িয়ে মুনাফা করে তা নিয়ন্ত্রণে কোন পদক্ষেপ নেয় না। এবারের বন্যায়ও দেখা গেছে ৮০০ টাকার নৌকা ভাড়া ১০ হাজার টাকা, ১২শ টাকার ২৫ কেজির চিড়ার বস্তা ১৭শ টাকা, ৫ টাকার মোমবাতি ৩০/৪০ টাকা বিক্রি করছে অথচ প্রশাসন নির্লিপ্ত।

সংবাদ সম্মেলন থেকে পদ্মা সেতুর আড়ম্বরপূর্ণ উদ্বোধন অনুষ্ঠান স্থগিত করে ওই টাকা বন্যার্তদের ত্রাণ-পুনর্বাসনে ব্যয় করাসহ ৯ দফা দাবি উত্থাপন করা হয়। এসব দাবির মধ্যে আছে- সিলেট-সুনামগঞ্জসহ দেশের গুরুতর বন্যা কবলিত জেলাকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা, বানভাসি সকল মানুষকে সেনা, নৌ, বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টার-বোট দিয়ে দ্রুত নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়ে আসা; আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে পর্যাপ্ত খাবার, শিশু খাদ্য, বিশুদ্ধ খাবার পানি, ঔষধ সরবরাহ নিশ্চিত করা; বন্যার পানি নেমে যাওার সময় থেকে পানিবাহিত রোগ প্রতিরোধের কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া; ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ নিশ্চিত করা, ত্রাণ-পুনর্বাসনে দুর্নীতি-দলীয়করণ বন্ধ করা; পদ্মা সেতুর আড়ম্বরপূর্ণ উদ্বোধন অনুষ্ঠান স্থগিত করে ওই টাকা বন্যার্তদের ত্রাণ-পুনর্বাসনে ব্যয় করা; বন্যার স্থায়ী সমাধানের জন্য সরকারের অপরিকল্পিত উন্নয়ন, বাঁধ-সড়ক নির্মাণ বন্ধ কর। পানি প্রবাহে বাধা সৃষ্টিকারী বাঁধ, রাস্তা অপসারণ করা; সকল নদী-খাল-জলাশয় ভরাট ও দখল-দূষণ বন্ধ করা; নদী-খাল পরিকল্পিত ও আধুনিক পদ্ধতিতে খনন করা; পাহাড়-টিলা-বন ধ্বংস বন্ধ করা, প্রাণ-প্রকৃতি-পরিবেশ রক্ষা করা, জলবায়ু পরিবর্তন রোখা; ভারতের সাথে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী অভিন্ন নদী সমস্যার সমাধান করার উদ্যোগ নেওয়া। তথ্য সংগ্রহ : সাপ্তাহিক একতা।


এ জাতীয় আরো খবর
Developed By ThemesDealer.Com